Business is booming.

ওরা ঘরে না বসে এগিয়ে এসেছে, আপনিও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন

0

সারা বিশ্বের মহামারী করোনার প্রভাব থেকে রক্ষা পেতে নিউইয়র্কে নিজ উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ করছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

করোনায় যখন গোটা আমেরিকা বিপর্যস্ত, লকডাউনে কয়েক কোটি মানুষ স্বেচ্ছায় ঘরবন্দি তখন ‘মানুষ মানুষের জন্য’ স্লোগানে করোনাভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে এগিয়ে এসেছেন বাংলাদেশি–আমেরিকান বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ী হিমু আমিন। তাঁর এই উদ্যোগে সাড়া দিয়ে এগিয়ে এসেছেন আরও বাংলাদেশি- আমেরিকান বংশোদ্ভূত নাগরিক।

হিমু বলেন, আমি আমেরিকায় মোবাইল ক্যারিয়ারের ব্যবসা করি। যখন পত্র-পত্রিকা ও টিভিতে করোনায় অনেকে নিজের সুরক্ষার জন্য মাস্ক ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী না থাকায় আতঙ্কে ভুগছেন তখনই আমি একজন মানুষ হিসেবে এই মানবিক কাজটি শুরু করি।

তিনি আরও বলেন,প্রথমে আমার ম্যানহাটনের স্টোর থেকে এই কর্যক্রম শুরু করি। সেখান থেকে যাঁদের প্রয়োজন তাঁদের বাসায় গিয়ে আমরা মাস্ক ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী পৌঁছে দেই।

যখন ঘরে বসে দেখি একজন বাংলাদেশি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাস্ক ও অন্যান্য সাহায্যও করছেন তখন নিজে ঘরে থাকতে পারিনি।

এদিকে আরেক বাংলাদেশি-আমেরিকান বংশোদ্ভূত তানভীর আহমদ যিনি লং আইল্যান্ডে বসবাস করেন তিনিও নিজ উদ্যোগে মাস্ক ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীসহ (পিপিই) অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

এ সম্পর্কে তানভীর বলেন, আমার স্ত্রী একজন চিকিৎসক। করোনা মহামারী আমেরিকার সব অঙ্গরাজ্যে ছড়িয়ে পড়ার পর আমরা সবাই ঘরবন্দি।

তিনি আরও বলেন, আমার স্ত্রী যেহেতু চিকিৎসক তখন প্রতিদিন অনেক করুণ অভিজ্ঞতার কথা তিনি শেয়ার করেন। এই সব শুনে নিজ থেকে আমি বাংলাদেশি ও আমেরিকান নাগরিকদের সাহায্যার্থে এগিয়ে আসি। এমনকি অনলাইনে একটি ফান্ড রাইজিং কার্যক্রম শুরু করি।

সাহায্যের জন্য এই লিংক ক্লিক করুন

এদিকে, নিউইয়র্কে অনেক হাসপাতালে চিকিৎসক, নার্স, পুলিশ কর্মর্কর্তা যাঁরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন তাঁদেরও সাহায্য করছেন এই দুই বাংলাদেশি।

নিজ অভিজ্ঞতা তোলে ধরে এক (এনওয়াইপিডি) পুলিশ অফিসার ইফতি চৌধুরী আওয়াজবিডিকে বলেন, আমি এই প্রাণঘাতী করোনায় ৩ জন পরিবারের সদস্যকে হারিয়ে ফেলেছি।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু আমেরিকান নাগরিকদের রক্ষা করার শপথ নিয়েছি সেহেতু জীবন বাজি রেখে কাজ করা আমাদের দায়িত্ব।

পুলিশ অফিসার বলেন, আমি ফেসবুকে মাস্ক ও পিপিই’র জন্য একটি পোস্ট দেই। তখন তানভীর আমাকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। এখন তানভীর ও হিমুর এই উদ্যোগে তাঁদের সহায়তা করছি। তবে এই মানবিক কাজে আমাদের যথেষ্ট পরিমাণ ফান্ড নেই তাই আশা করব আমাদের সহযোগিতায় করোনা মোকাবিলায় প্রবাসী বাংলাদেশিরা এগিয়ে আসবেন।

নিউইয়র্কে যারা (First Responder) তাঁরা ফ্রীতে সার্জিক্যাল মাস্ক পেতে পারেন নিচের ঠিকানায়:
AT&T Amsterdam Ave
526 Amsterdam Ave
Manhattan, NY. মোবাইল ফোন : 2124703184

এছাড়া জামাইকা , ওজনপার্ক, ব্রঙ্কসে মাস্ক পেতে যোগাযোগ করতে পারেন পুলিশ অফিসার ইফতির সাথে। মোবাইল- 3476148949

Leave A Reply

Your email address will not be published.